সরকারের উন্নয়নের দাবি যেভাবে বিধ্বস্ত করল প্রথম আলো

[আওয়ামী লীগ সরকারের কথিত উন্নয়নের দাবিকে একপ্রকার বিধ্বস্ত করে ছাড়লো বাংলাদেশের শীর্ষ জাতীয় পত্রিকা প্রথম আলো। সরকারের উন্নয়নের দাবি বিধ্বস্ত করেই ক্ষান্ত হয়নি প্রথম আলো, পত্রিকাটি সরকারের স্বৈরাচার, দুর্নীতি, ব্যাঙ্ক লুট, অর্থ পাচার, ইত্যাদি সম্বন্ধেও তীব্র সমালচনাও করেছে। আন্তর্জাতিক রাজনৈতিক অর্থনীতি বিষয়ের গবেষক মাহা মির্জা লিখিত ও মনোরঞ্জন সূত্রধর অংকিত চিত্র সম্বলিত ধারাবাহিক দুটি রিপোর্ট এবসাথে আহরাম বিডির পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো]

‘ভারত বনাম বাংলাদেশ’ তুলনাটি ক্ষতিকর

অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন বিভিন্ন সময়ে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর তুলনামূলক পর্যালোচনা করেছেন, দেখিয়েছেন মানবসম্পদের প্রায় সব কটি সূচকেই ভারত ও পাকিস্তান থেকে এগিয়ে আছে বাংলাদেশ। আপাতদৃষ্টিতে এটি ভালো সংবাদ। কিন্তু আমাদের ভারতকেন্দ্রিক চিন্তায় এই ‘ভারত বনাম বাংলাদেশ’ তুলনাটি আদতে ক্ষতিকর। কারণ, উন্নয়নের চূড়ান্ত ‘স্ট্যান্ডার্ড’ হিসেবে আমরা ধরেই নিয়েছি ভারতকে। অর্থাৎ ভারত থেকে সব কটি সূচকে এগিয়ে থাকলেই বাংলাদেশ খুব ভালো করছে। কিন্তু সত্য এটাই যে ভয়াবহ দারিদ্র্যের দেশ ভারত কিংবা মৌলবাদ ও ফৌজিতন্ত্রের খপ্পরে পড়া পাকিস্তানকে মানদণ্ড ধরলে আপাতদৃষ্টিতে বাংলাদেশের অবস্থান সন্তোষজনক মনে হলেও বাংলাদেশের প্রকৃত ভগ্ন ও নগ্ন দশাটি আড়ালেই থেকে যায়। আবার অন্যদিকে যুদ্ধবিধ্বস্ত শ্রীলঙ্কা মানবসম্পদের প্রায় প্রতিটি সূচকেই বাংলাদেশ থেকে এগিয়ে থাকলেও শ্রীলঙ্কা নিয়ে কোনো আলোচনা হয় না। মহাগরিবির দেশ ভারত ও পাকিস্তানকেই একমাত্র মানদণ্ড ধরায় শিক্ষা, স্বাস্থ্য, স্যানিটেশন, পুষ্টিসহ প্রতিটি ক্ষেত্রে বহুগুণ এগিয়ে থাকা শ্রীলঙ্কার সূচকগুলো আমাদের মধ্যে কোনো আগ্রহেরও তৈরি করে না।

উন্নয়নের সূচকগুলো কি সমালোচনার ঊর্ধ্বে?

‘উন্নয়নশীল’ হতে হলে যোগ্যতার মাপকাঠি তিনটি—মাথাপিছু আয়, মানবসম্পদের উন্নয়ন ও অর্থনৈতিক ঝুঁকিহ্রাস। অথচ এই সূচকগুলো সমালোচনার ঊর্ধ্বে নয়। বিশেষত মাথাপিছু আয়ের হিসাবটা বরাবরই লেজেগোবরে। এই হিসাবে সোনালী ব্যাংক, জনতা ব্যাংক, ফার্মার্স ব্যাংক, বিসমিল্লাহ গ্রুপ বা হল-মার্ক, এমনকি শেয়ারবাজার লুটেরাদের কুক্ষিগত সম্পদকেও সমাজের দশজনের গড় সম্পদ বলে চালিয়ে দেওয়া হয়। হকার, রিকশাচালক, গার্মেন্টস মালিক—সবাইকে মধ্যবিত্ত দেখায়, আর মাঝখান থেকে লুটেরাদের ফুলে-ফেঁপে ওঠার দৃশ্যটা ঢাকা পড়ে যায়।

ভারতে যখন জিডিপিতে ৮ শতাংশ ছাড়িয়েছে, তখনো বিশ্বের ক্ষুধার্ত মানুষের তালিকায় ভারত ছিল শীর্ষে—প্রায় ৮০ কোটি ভারতীয় দারিদ্র্যসীমার নিচে বাস করেছে, ১৯ কোটি ভারতীয় অপুষ্টিতে ভুগেছে, আর প্রতিদিন আত্মহত্যা করেছেন ৪১ জন করে ভারতীয় কৃষক। যেমন সিপিডির এক গবেষণায় দেখা গেছে, বাংলাদেশে গত ছয় বছরে জিডিপি বাড়ার দিনগুলোয় সবচেয়ে ধনী ৫ শতাংশ মানুষের আয় বেড়েছে ৩২ হাজার কোটি টাকা, আর সবচেয়ে গরিব ৫ শতাংশ মানুষের আয় কমেছে ১০৫৮ টাকা১। অর্থাৎ মাথাপিছু আয়ের এই সূচকটি আসলে উন্নয়ন, আইনের শাসন, মানুষের ভালো থাকা, খারাপ থাকা—এসবের কিছুই বোঝায় না।

অন্য সূচকগুলোও যথেষ্ট বিভ্রান্তিকর। যেমন সূচক বলছে, মেয়েদের মাধ্যমিক স্কুলে ভর্তির হার বেড়েছে। কিন্তু বাংলাদেশ শিক্ষা পরিসংখ্যান-২০১৭ বলছে, ষষ্ঠ শ্রেণিতে ভর্তি হওয়া ৪১ শতাংশ মেয়েই দশম শ্রেণির আগেই ঝরে পড়ছে। আবার জাতিসংঘের সংস্থা ইউনিসেফ বলছে, বিশ্বে বাল্যবিবাহের হার কমলেও বাংলাদেশে বাড়ছে (অবস্থান বিশ্বে চতুর্থ)২!

বাংলাদেশে গত কয়েক দশকে শিশুমৃত্যুর হার কমেছে। কিন্তু পাশাপাশি আশঙ্কাজনকভাবে বেড়েছে খর্বকায় এবং অটিস্টিক শিশুর সংখ্যা। দেশের ৩৬ শতাংশ শিশু খর্বকায়। ৫১ শতাংশ শিশু অ্যানিমিয়ায় ভুগছে। মারাত্মক অপুষ্টির ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলোর তালিকাতেও বাংলাদেশ অন্যতম৩। অর্থাৎ যে শিশুগুলোকে বাঁচানো যাচ্ছে, তারা ন্যূনতম পুষ্টিকর খাদ্য পাচ্ছে না। বেঁচে থাকা শিশু বড় হচ্ছে ক্ষুধায়, কম খেয়ে, অপুষ্টিতে, খাটো গড়নের হয়ে। তাহলে শিশুদের এমন অমানবিক বেঁচে থাকায় কার উন্নয়ন হলো? অর্থাৎ সূচক খণ্ডিত বা আংশিক চিত্র দিচ্ছে মাত্র।

উন্নয়নের দিনে আইনের শাসন, যৌন সহিংসতা ও জীবনের নিরাপত্তা

‘সরকারি ক্ষমতার অপব্যবহারে’ বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে শীর্ষে8! সামগ্রিকভাবে ‘আইনের শাসনে’ ১১৩টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১০২। খেলাপি ঋণে উন্নয়নশীল দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ ‘নম্বর ওয়ান’৫! ক্ষমতাবানদের যোগসাজশে দেদার অর্থ আত্মসাৎ চলছেই। নয় বছরে খেলাপি ঋণ বেড়েছে সাড়ে তিন গুণ! আর বিচার? উন্নয়নের দেশে বিচারের কী হাল, তার সাক্ষ্য দিচ্ছে প্রতিদিনের দুঃসংবাদগুলো।

এবার দেখা যাক কেমন আছে উন্নয়নের দেশের মেয়েরা। গত চার বছরে ধর্ষণে শিকার হয়েছে ১৭ হাজার নারী ও শিশু৬। আন্তর্জাতিক জরিপে ঢাকা পৃথিবীর সপ্তম বিপজ্জনক শহর। যৌন সহিংসতায় ঢাকার অবস্থান চতুর্থ৭। ২০০২ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ধর্ষণ, গণধর্ষণ এবং ধর্ষণের পর হত্যাসংশ্লিষ্ট মামলাগুলোর ৯৭ শতাংশেরই কোনো সাজা হয়নি৮। ‘ওয়ার্ল্ড জাস্টিস প্রোজেক্ট’ দেখাচ্ছে, ‘সুষ্ঠু তদন্ত’, ‘দ্রুত তদন্ত’, ‘সুষ্ঠু আইনি প্রক্রিয়া’ ইত্যাদি প্রায় সব কটি সূচকেই বাংলাদেশের স্কোর লজ্জাজনক।

‘নাগরিক নিরাপত্তা’র বেলাতেও বাংলাদেশের অবস্থান ১১৩টি দেশের মধ্যে ১০২। প্রতিবছর রাস্তাঘাটে দুর্ঘটনায় মুড়িমুড়কির মতো মরছে গড়ে প্রায় ২০ হাজার মানুষ। পোশাকশিল্প, নির্মাণশিল্প, পাহাড় কাটা, আর জাহাজ ভাঙা খাতে স্রেফ অবহেলাজনিত দুর্ঘটনায় বেঘোরে প্রাণ দেন শত শত শ্রমিক৯। বৈদ্যুতিক শকে, বিষাক্ত গ্যাসে, ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে ‘ফায়ার এক্সিটে’র অভাবে, পুরোনো বয়লার ফেটে, উঁচু থেকে পড়ে হাড়গোড় ভেঙে শ্রমিক মরছে তো মরছেই। বছরে গড়ে ৭০০ শ্রমিক নিহত হচ্ছেন। আহত ১ হাজার ৩০০ জন১০। কোথাও কোনো মাথাব্যথা আছে কি?

উন্নয়নের দিনে পরিবেশ ও নদী ধ্বংস

জাতিসংঘের অর্থনৈতিক সূচকগুলোয় পরিবেশ ধ্বংসের গল্পটি নেই। কৃষকের ‘লাইফলাইন’ বাংলাদেশের নদীগুলোর একের পর এক শুকিয়ে যাওয়ার গল্পটি নেই। তবে আলাদা করে বেশ কিছু আন্তর্জাতিক সমীক্ষা হয়েছে। সেখানেও বাংলাদেশের অবস্থান শোচনীয়। পরিবেশ সুরক্ষায় ১৮০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১৭৯১১! পানি, বাতাস, পয়োনিষ্কাশন বা জনস্বাস্থ্য—সব কটি সূচকেই ঢাকার অবস্থান তলানির দিক থেকে শীর্ষে। ভয়াবহ ক্ষতিকর সালফার ডাই-অক্সাইড বা কার্বন মনো-অক্সাইড নির্গমনেও ঢাকা বিশ্বের দ্বিতীয় শীর্ষে১২। ঢাকার চারপাশের নদীগুলোতে আর্সেনিক, ক্যাডমিয়াম আর সিসার দূষণ ভয়াবহ পর্যায়ে পৌঁছেছে১৩। বিশ্বব্যাংকের সমীক্ষা বলছে, ঢাকায় সিসাদূষণের শিকার ছয় লাখ মানুষ (বেশির ভাগই শিশু)১৪ এবং দেশের ১ কোটি ২৭ লাখ মানুষের দেহে অস্বাভাবিক কোষের বৃদ্ধি ঘটছে১৫। এ ছাড়া পরপর কয়েক বছর ধরেই ঢাকা পৃথিবীর সবচেয়ে বসবাস-অনুপযোগী শহরগুলোর মধ্যেও অন্যতম শীর্ষে১৬। অর্থাৎ আক্ষরিক অর্থেই ভেঙে পড়ছে সবকিছু। তবু রাস্তা আটকিয়ে চলছে উন্নয়নের আনন্দ র‍্যালি! সত্যিই সেলুকাস, এ এক অদ্ভুত উন্নয়নের দেশ!

উন্নয়ন, দুর্নীতি ও জিডিপি: একসঙ্গে বাড়ার রহস্য কী?

এ বছর বাংলাদেশের সঙ্গে সঙ্গে আফগানিস্তান আর মিয়ানমারও ‘উন্নয়নশীল’ দেশের তালিকায় ওঠার জন্য যোগ্যদের তালিকায় জায়গা করে নিচ্ছে। এই যোগ্যতার পরের পরিমাপ হবে ২০২১ সালে। ২০২১ সালের পরীক্ষায় পাস হলে ২০২৪ সালে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশ বলে ঘোষণা করবে জাতিসংঘ। দুঃখজনক এই যে ভয়াবহ দুর্নীতি, দারিদ্র্য আর আইনের শাসন ভেঙে পড়া এসব দেশের সঙ্গেই আজকাল আমাদের একচেটিয়া প্রতিযোগিতা। আরেকটু ওপরের দিকে তাকানোর মতো হুঁশও আমাদের আর অবশিষ্ট নেই।

‘তাঁরা’ প্রায়ই জানতে চান, ‘এতই যদি দুর্নীতি, তাহলে জিডিপি বাড়ে কেন?’ যেন দুর্নীতি হলে জিডিপি বাড়ার সুযোগ নেই! অথচ অর্থনীতিতে লেনদেন বাড়লেই জিডিপি বাড়ে। সেই অর্থে রাস্তা, কালভার্ট, ব্রিজ বা ফ্লাইওভার নির্মাণে যতই লুটপাট হোক; এমপি, নেতা, ঠিকাদার মিলে যতই ভাগ-বাটোয়ারা করুক, যতই লাফিয়ে লাফিয়ে প্রকল্প ব্যয় বাড়ুক, টাকার লেনদেন তো বাড়ছে, তাই জিডিপিও বাড়বে। যেমন এক রাস্তা অনর্থক দশবার কাটাকাটি, ভাঙাভাঙি করলেও জিডিপি বাড়ে, দেশের অর্ধেক মানুষ পানিদূষণ, বায়ুদূষণ, বা সিসাদূষণের কারণে ভয়াবহ সব অসুখ–বিসুখে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হলেও জিডিপি বাড়ে, ঢাকার ‘লাইফলাইন’ খাল এবং নালাগুলো দখল করে প্রভাবশালীদের বহুতল মার্কেট তৈরি হলেও জিডিপি বাড়ে।

যেমন গ্লোবাল কম্পেটিটিভ ইনডেক্স বলছে, এশিয়ার মধ্যে নেপালের পরেই সবচেয়ে খারাপ রাস্তা বাংলাদেশে১। অন্যান্য দেশের তুলনায় দ্বিগুণ–তিন গুণ অর্থ ব্যয়ে রাস্তা নির্মাণ করা হলেও কয়েক বছরের মাথায় ভয়াবহ দুর্গতি হচ্ছে রাস্তাগুলোর। দ্রুত পুনর্নিমাণ করার প্রয়োজন পড়ছে। অর্থাৎ আবারও নতুন বাজেট, নতুন লেনদেন, নতুন ভাগ-বাটোয়ারা, নতুন চুরি। দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্যি, প্রকল্প ব্যয় বা চুরির পরিমাণ বাড়লে জিডিপি বাড়াই স্বাভাবিক। কারণ, জিডিপি কেবল ‘ফাইনাল প্রোডাক্টে’র মূল্যমান বোঝে। কে পেল টাকার ভাগ: নেতা, জনগণ না ঠিকাদার, সেই হিসাবের দায় জিডিপির নেই।

তবে দুর্নীতির টাকা যতক্ষণ দেশে আছে এবং দেশের বিভিন্ন খাতে বিনিয়োগ হচ্ছে, ততক্ষণই দুর্নীতি বা লুটপাটের সঙ্গে জিডিপির কোনো বিরোধ নেই। যেমন জেনারেল সুহার্তোর সময়ে ইন্দোনেশিয়া ছিল পৃথিবীর সবচেয়ে দুর্নীতিপরায়ণ দেশ। আবার একই শাসনামলে ইন্দোনেশিয়ার জিডিপি এবং মাথাপিছু আয় বেড়েছে। অর্থাৎ দুর্নীতির টাকা দেশের ভেতরেই ছিল এবং তা উৎপাদন, বিনিয়োগ ও কর্মসংস্থানে ভূমিকা রাখছিল। কিন্তু বাংলাদেশের চিত্রটি এত সরল নয়। এখানে মহামারির মতো দুর্নীতি হচ্ছে, ক্ষমতাবানদের যোগসাজশে অবাধে ব্যাংক ‘ডাকাতি’ হচ্ছে, সরকারের কাছের লোকজন বিপুল অর্থসম্পদের মালিক হচ্ছে, কিন্তু শেষ পর্যন্ত লুটের টাকা চলে যাচ্ছে দেশের বাইরে। আমরা জানি, শেয়ারবাজার কেলেঙ্কারিতে প্রায় ১৫ হাজার কোটি টাকা খুইয়েছিলেন ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীরা২। এর একটা বড় অংশই বিদেশে পাচার হয়ে গেছে। ‘গ্লোবাল ফিনান্সিয়াল ইন্ট্রিগ্রিটি’র রিপোর্ট বলছে, গত ১০ বছরে বাংলাদেশ থেকে পাচার হয়েছে প্রায় ৬ লাখ কোটি টাকা৩! অর্থাৎ এটা আমাদের জাতীয় বাজেটেরও দ্বিগুণ!

এখানে দুটি প্রশ্ন প্রাসঙ্গিক। প্রথমত, বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যাংক থেকে লুট হয়ে গেলেও সামগ্রিক অর্থনীতিতে তার সরাসরি প্রভাব কতটা? দ্বিতীয় প্রশ্ন, লুটপাট ও দুর্নীতির টাকার একটি বড় অংশ দেশের বাইরে চলে যাচ্ছে, তারপরও জাতীয় মাথাপিছু আয়ে তার প্রভাব পড়ছে না কেন? প্রথমত, আন্তর্জাতিক ঝুঁকি যাচাইকারী প্রতিষ্ঠানগুলো বলছে, বাংলাদেশের ব্যাংকিং খাত ভয়াবহ ঝুঁকির মধ্যে আছে৪ (এরপরও একের পর এক নতুন ব্যাংকের অনুমোদন পাচ্ছে ক্ষমতাসীনেরা!)। অর্থ মন্ত্রণালয়ের সূত্রই বলছে, ব্যাংকিং খাতের ‘অব্যবস্থাপনা’ (পড়ুন লুটপাট) কাটিয়ে উঠতে গত নয় বছরে তাদের প্রায় ১৬ হাজার কোটি টাকার ভর্তুকি দেওয়া হয়েছে৫। সবচেয়ে খারাপ সংবাদটি হচ্ছে, একে একে বেসরকারি ব্যাংকগুলোর সব অন্যায় আবদার মেনে নিচ্ছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক! সরকারি ব্যাংকের হেফাজতে থাকা জনগণের রক্ত পানি করা আমানতের ৫০ ভাগই এখন বেসরকারি ব্যাংকগুলোর তহবিলে রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে! আর এ বছরের শুরুতেই লুটপাট সামলাতে বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে আরও ২০ হাজার কোটি টাকা চেয়েছে ছয় রাষ্ট্রীয় ব্যাংক৬। এই বিপুল পরিমাণ ভর্তুকির টাকা আসবে কোথেকে? জনগণের ঘাড়ে পাড়া দিয়ে বাড়তি ট্যাক্স, ভ্যাট আদায় করা ছাড়া আর উপায় কী?

দ্বিতীয় প্রশ্নটি ছিল, এত সব দুর্নীতির পরেও মাথাপিছু আয় বাড়ছে কেমন করে? উত্তরটি করুণ ও বুকভাঙা। একদিকে প্রতিবছরই গড়ে ৬০-৭০ হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার হচ্ছে৭, আরেক দিকে খেয়ে না খেয়ে হাড়ভাঙা পরিশ্রম করে বছরে প্রায় ৯০ হাজার কোটি টাকা রেমিটেন্স পাঠাচ্ছেন প্রবাসী শ্রমিক৮। টাকা পাচার, ব্যাংক লুট, হরিলুট, এত কিছুর পরও তাই মাথাপিছু আয় বাড়ছেই। খেয়াল করুন, শ্রমে–ঘামে বিবর্ণ আধপেটা প্রবাসী শ্রমিকের দিনের পর দিন ‘কম খাওয়া’ মেনুর মধ্যেই লুকিয়ে আছে বাংলাদেশের ব্যাংকিং খাতের প্রাণভোমরা। রক্ত পানি করা এই বিপুল পরিমাণ রেমিটেন্সের দাপটেই আজ ‘তাঁরা’ বলতে পারেন, ‘চার হাজার কোটি টাকা কিচ্ছু না’! রিজার্ভের ৮০০ কোটি টাকা ‘কে’ বা ‘কারা’ স্রেফ লুটেপুটে খেয়ে ফেললেও আজও মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে থাকতে পারছে বাংলাদেশ সেন্ট্রাল ব্যাংক।

তাহলে উন্নয়নের দেশে কেমন আছেন অর্থনীতির চাকা ঘোরানো সেই মানুষগুলো? সত্য এটাই যে তাঁরা ভালো নেই। উন্নয়নের দেশে কৃষক বছরের পর বছর ফসলের ন্যায্য মূল্য পান না। উন্নয়নের দেশে এশিয়ার সবচেয়ে কম মজুরিতে৯ এবং সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে কাজ করেন গার্মেন্টস খাতের শ্রমিকেরা১০। উন্নয়নের দেশে টিকতে না পেরে বিদেশে হাড়ভাঙা পরিশ্রম করতে গিয়ে ১৩ বছরে লাশ হয়ে ফেরেন ৩৩ হাজার শ্রমিক১১। জনগণের নিরাপত্তা, পরিবেশ, অর্থনীতি, বা আইনের শাসন—এসব ক্ষেত্রেই প্রতিটি দেশি–বিদেশি জরিপ দেখাচ্ছে সবকিছু ভেঙে পড়ার এক ভয়াবহ চিত্র।

কানাডীয় গবেষক নাওমি ক্লেইন তাঁর ‘নো-লোগো’ বইতে দেখিয়েছিলেন, পণ্যের ব্র্যান্ডিং আর বিজ্ঞাপনের পেছনে বিরামহীন অর্থ ব্যয় করে কোম্পানিগুলো, পাশাপাশি ভয়াবহ কাটছাঁট চলে শ্রমিকের মজুরিতে। বাংলাদেশের উন্নয়নটা ঠিক এমনই। অভাব, অন্যায় আর ভয়াবহ বিচারহীনতার দেশে বিপুল টাকাপয়সা খরচ করে উন্নয়ন নামক পণ্যের ঢাকঢোল পিটানোই এখন সরকারের একমাত্র ‘এস্কেইপ রুট’। জনগণকে বিভ্রান্ত করে রাখার একমাত্র পন্থা। কিন্তু ক্রমাগত ঘা খাওয়া, লাথি খাওয়া মানুষের জানতে আর বাকি নেই, এই চোখধাঁধানো উন্নয়নের ব্র্যান্ডিং আসলে একটি ‘গোয়েবলসীয়’ প্রচারণা, একটি ভয়াবহ তামাশা।

তথ্যসূত্র:

১. বাংলাদেশ অর্থনীতি ২০১৭-২০১৮, প্রথম অন্তর্বর্তীকালীন পর্যালোচনা, সিপিডি।
২. প্রথম আলো, ‘বাংলাদেশে বাল্যবিবাহ বেড়েছে’, মার্চ ৭, ২০১৮।
৩. ইন্টারন্যাশনাল ফুড পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট, ২০১৬।
৪. ওয়ার্ল্ড জাস্টিস প্রজেক্ট ২০১৭।
৫. বণিক বার্তা, খেলাপি ঋণের হার: উন্নয়নশীল দেশে শীর্ষে বাংলাদেশ, মার্চ ১৯,২০১৮
৬. চার বছরে ১৭ হাজার ধর্ষণ মামলা, প্রথম আলো, ২০১৮।
৭. থম্পসন রয়টার্স ফাউন্ডেশন। দ্য ওয়ার্ল্ডস মোস্ট ডেঞ্জারাস মেগাসিটিস ফর উইমেন, ২০১৭।
৮. প্রথম আলো, নারী ও শিশুরা বিচার পায় না, মার্চ ৮,২০১৮।
৯. বাংলাদেশ অকুপেশনাল সেফটি, হেলথ অ্যান্ড এনভায়রনমেন্ট ফাউন্ডেশন, ২০১৮।
১০. বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব লেবার স্টাডিজ (বিলস) সমীক্ষা-২০১৬
১১. এনভায়রনমেন্টাল পারফরম্যান্স ইনডেক্স-২০১৮
১২. ইউএস এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স, মার্চ ২৩, ২০১৮।
১৩. চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, ইনস্টিটিউট অব মেরিন সায়েন্স অ্যান্ড ফিশারিজ। ২০১৮।
১৪. বাংলাদেশ পরিবেশ সমীক্ষা-২০১৭, বিশ্বব্যাংক।
১৫. ক্যানসার কন্ট্রোল ইন বাংলাদেশ, জাপানিজ জার্নাল অব ক্লিনিক্যাল অনকোলজি (জেজেসিও), ২০১৫।
১৬. গ্লোবাল লিভেবিলিটি ইনডেক্স ২০১৭।
১৭. গ্লোবাল কম্পেটিটিভ ইনডেক্স ২০১৭-১০১৮।
১৮. প্রথম আলো, সাত বছরে আত্মসাৎ ৩০ হাজার কোটি টাকা। মার্চ ২৮, ২০১৬।
১৯. গ্লোবাল ফিনান্সিয়াল ইন্টেগ্রিটি ২০১৭, ইলিসিট ফিনান্সিয়াল ফ্লোওস টু এন্ড ফ্রম ডেভেলপিং কান্ট্রিস: ২০০৫-২০১৪
২০. দ্য ফিনান্সিয়াল এক্সপ্রেস, ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০১৮।
২১. বাংলাদেশ অর্থনীতি ২০১৭-১৮, প্রথম অন্তর্বর্তীকালীন পর্যালোচনা। সিপিডি।
২২. দৈনিক ইত্তেফাক, মূলধনঘাটতি পূরণে রাষ্ট্রয়াত্ব ব্যাংকগুলো চেয়েছে ২০ হাজার কোটি টাকা, ফেব্রুয়ারি ১৫, ২০১৮।
২৩. প্রথম আলো, এক বছরে ৭৩ হাজার কোটি টাকা পাচার, মে ৩, ২০১৭।
২৪. বাংলাদেশ ব্যাংক, মান্থলি ডেটা অব রেমিটেন্স ২০১৬-২০১৭।
২৫. বণিক বার্তা, এশিয়ার সর্বনিম্ন মজুরি বাংলাদেশ, জুলাই ১৫, ২০১৭।
২৬. ২০১৭ ফ্যাশন ইন্ডাস্ট্রি বেঞ্চমার্ক স্টাডি, ইউনাইটেড স্টেইটস ফ্যাশন ইন্ডাস্ট্রি অ্যাসোসিয়েশন।
২৭. বাংলাদেশ অকুপেশনাল সেফটি, হেলথ অ্যান্ড এনভায়রনমেন্ট ফাউন্ডেশন ২০১৭।

মাহা মির্জা: আন্তর্জাতিক রাজনৈতিক অর্থনীতি বিষয়ের গবেষক।

সূত্র: প্রথম আলো

Facebook Comments

comments