ছাত্রলীগ নেতা রনির হুমকির আরও দুটি অডিও ফাঁস (অডিওসহ)

চট্টগ্রাম বিজ্ঞান কলেজের অধ্যক্ষ জাহিদ খানকে মারধরের ভিডিও ফুটেজ ফাঁস হওয়ার পর ছাত্রলীগ নেতা নুরুল আজিম রনির হুমকির আরও দুটি অডিও রেকর্ড ফাঁস হয়েছে।

কলেজের অধ্যক্ষ জাহিদ খান নিজেই নিজের ফেসবুক ওয়ালে অডিও রেকর্ড দুটি ফাঁস করেন। এর আগে ছাত্রলীগ নেতা নুরুল আজিম রনিসহ ৬ ছাত্রলীগ নেতার নাম এবং অজ্ঞাতনামা আরো ৩০ ছাত্রলীগ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে সন্ত্রাস ও চাঁদাবাজির অভিযোগে মামলা দায়ের করেন তিনি।

গত শনিবার নগরীর চকবাজার এলাকার বেসরকারি বিজ্ঞান কলেজের অধ্যক্ষ জাহেদ খানকে মারধর করে তুমুল সমালোচনার মুখে পড়েন রনি। এই কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ফি আদায় করা নিয়ে সেদিন অধ্যক্ষের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েন তিনি।

অধ্যক্ষকে মারধরের বিষয়টি রনি প্রথমে অস্বীকার করলেও পরে কলেজের সিসি ক্যামেরায় ধরা পড়ে। আর এই ভিডিও ফুটেজটি ফেসবুকে শেয়ার করে অধ্যক্ষ জাহিদ খান।

ফেসবুকের মাধ্যমে এ ঘটনা চট্টগ্রাম তো বটেই, সারাদেশে প্রচার পায়।

ফুটেজ দেখে রনির চোখও যেন ছানাবড়া। মিডিয়ার কাছে তিনি দাবি করেন, তখন সেন্স ঠিক রাখতে পারেননি। চারদিন পর বুধবার রাতে এ ঘটনায় রনিসহ ছাত্রলীগের ৩৭ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে সন্ত্রাস ও চাঁদাবাজির অভিযোগে চকবাজার থানায় মামলা দায়ের করেন বিজ্ঞান কলেজের অধ্যক্ষ জাহেদ খান।

মামলার এজাহারে রনির বিরুদ্ধে ২০ লাখ টাকা চাঁদা দাবির অভিযোগ করা হয়। মামলার পর অধ্যক্ষ জাহেদ খান রনির সাথে দুই মাস আগে তাঁর মোবাইল ফোনে কথোপকথনের দুটি অডিও রেকর্ড ফাঁস করে দেন বৃহস্পতিবার বিকেলে।
রেকর্ডে শুনা যায়, জাহেদ খানের সাথে রনি কথা বলার সময় চলিত ভাষার সাথে চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষাও ব্যবহার করেন।

২১ সেকেন্ডর একটি অডিও রেকর্ডে রনি ফোনের অপর প্রান্ত থেকে জাহেদ খানকে বলেন, তুঁই ক্যানে.. (প্রকাশযোগ্য নয়) শান্তিত থাহ আঁই চাইয়্যুম, আঁই অশান্তিত থাইক্কুম তো, কেউরে শান্তিত থাইকতে ন দিইয়্যুম। তোঁয়ার তুনো বড় মাইনসেরে শান্তি ন দির আঁই। আঁই কিছু পারি ন পারি অশান্তি হরি দিইয়ুম (তুমি কেমনে শান্তিতে থাকো, আমি দেখবো, আমি অশান্তিতে থাকবো তো, আমি কাউকে শান্তিতে থাকতে দেবো না। তোমার চেয়ে বড় মানুষদের আমি শান্তি দিই না। আমি কিছু পারি আর না পারি, অশান্তি করে দিই)। জাহেদ সাব (প্রকাশযোগ্য নয়) দুই মাসে দেখা গরিত নঁ পার (দুই মাসে দেখা করতে পারেন নাই)।

৪ মিনিট ২৩ সেকেন্ডের আরেকটি অডিও রেকর্ডে রনি ফোনের অপর প্রান্ত থেকে জাহেদ খানকে বলেন, ধানমন্ডিতে জায়গা কিনছেন, বিল্ডিং করছেন, ভুয়া ডিগ্রি একটা আমেরিকা থেকে আনছেন.. আঁই প্রকাশ গইল্যে (আমি প্রকাশ করলে) অসুবিধা নাই তো?

তখন এ প্রান্ত থেকে জাহেদ খান রনিকে বলেন, আমি প্রাইভেট মানুষ। আমার ডিগ্রি ১০০টা ভুয়া হলেও অসুবিধা নাই। আমি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এম এ পাশ করেছি। আমার এই ডিগ্রিও ভুয়া নাকি তখন দেখবো। এরপর রনি বলেন, ঠিক আছে, ওয়েট অ্যান্ড সি, হালিয়ে পেপারত দিইয়্যূম (আগামীকাল পত্রিকায় দিয়ে দেবো), বিজ্ঞাপন আকারে।

কথোপকথনের একপর্যায়ে রনি বলেন, আঁই অনেরে হইলাম দে, আঁই অনের লয় ব্যক্তিগত সমস্যাত যাইতাম ন চাই (আমি আপনাকে বললাম যে, আমি আপনার সাথে ব্যক্তিগত সমস্যায় জড়াতে চাই না)। এতাল্লাই বলি অনের রাজনৈতিক ব্যাকগ্রাউন্ড লইনেও প্রশ্ন ন গরির..অনে ইয়েন সমঝোতা গইয্যন দে নইনে এদিইন্যে (এজন্য আপনার রাজনৈতিক ব্যাকগ্রাউন্ড নিয়ে প্রশ্ন তুলছি না) ইয়া আবার ফেসবুকত এগিন কি দিয়্যুন দে (এখন আবার ফেসুবকে এসব কি দিয়েছেন)।

এসময় জাহেদ খান ফোনের এ প্রান্ত থেকে বলেন, যারা টাকা পয়সা দিতে চায় তাদের আমরা ওভাবে সেটেল করি। তখন অপর প্রান্ত থেকে রনি বলেন, যারা টাকা পয়সার দিকে যেতে চায়, তারা তো যাবে, আসবে। যারা যেতে চায় না তারা নিবে না। আর আপনি কোনো স্টুডেন্টদের হাতে টাকা দিবেন না। টাকা দিবেন অভিভাবকদের হাতে। মাঝখানে এসব আবার কি ঢুকাইলেন? আমি কিন্তু আজকেও শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানের সাথে দেখা করেছি। দেখেন, আমি কিন্তু আপনার প্রতিষ্ঠানের বারোটাই বাজামু।

নিয়ম লাগবে না, মন্ত্রণালয়ের নিয়ম লাইগদো ন্য (লাগবে না), বয় তাইক্যুম নিছদি, ঢুইকতে পাইত্তোনি কেউ (নিচে বসে থাকবো, কেউ ঢুকতে পারবে না)। এসময় অপর প্রান্ত থেকে জাহেদ খান বলেন, আপনি যদি মনে করেন যে ওইটা ভালো হবে তাহলে ওটা করে দিবো।

এই ফোনালাপে রনির সাথে যখন জাহেদ খান ফোনে এসব কথা বলেন তখন তিনি ঢাকায় ছিলেন। ফোনে কথোপকথনের একপর্যায়ে রনি জাহেদ খানকে বলেন আপনি কলেজে আসবেন কবে? অপর প্রান্ত থেকে তখন জাহেদ খান বলেন, আমি ঢাকায়। তখন রনি তাঁকে জিজ্ঞাসা করেন, আসবেন কবে? দেখা করা বেশি ইমপর্টেন্ট। এ সময় জাহেদ খান বলেন, আমি আসলে আপনাকে ফোন দেবো।

সূত্র: মানবজমিন

Facebook Comments

comments