ওড়না পরার সুযোগ পর্যন্ত দেয়া হয়নি খালেদাকে

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে জোর করে গাড়িতে তুলে হাসপাতালে নেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব এডভোকেট রুহুল কবির রিজভী। আজ বিকালে দলের নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে তিনি এ অভিযোগ করেন।

রিজভী বলেন, সাবেক তিনবারের প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে আনার সময় সম্পূর্ণ অপ্রস্তুতভাবে আনা হয়েছে। কারাগারে তাঁর কক্ষের কাছে গিয়ে বার বার তাগিদ দিতে থাকে কর্মকর্তাসহ ৭/৮ জন কাররক্ষী। একজন মুসলিম ধর্মপ্রাণ নারী হিসেবে ৩০-৩২ বছর ধরে তিনি শাড়ীর উপরে চাদর অথবা ওড়না পরিধান করেন। এ সরকার এতো হীন এবং কুৎসিৎ মনোবৃত্তির যে, একজন বয়স্ক নারী যিনি তিনবারের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন তাঁকে চাদর অথবা ওড়না পরিধান করার সুযোগ পর্যন্ত দেয়া হয়নি। তাঁকে একরকম জোর করেই গাড়িতে উঠিয়ে হাসপাতালে আনা হয়েছে।

তিনি বলেন, কারাগার থেকে খালেদা জিয়াকে পিজি (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালের ৫১২ নম্বর কক্ষে নিয়ে আসা হয়। কিন্তু চিকিৎসার নামে পিজি হাসপাতালে নিয়ে আসা প্রহসনেরই নামান্তর। কারণ সেখানে কোন চিকিৎসাই তাকে দেয়া হয়নি। তার ব্যক্তিগত চিকিৎসকদের কোন পরামর্শের সুযোগ দেওয়া হয়নি। আইনেও আছে একজন বন্দী পুর্বে যেসব চিকিৎসকের চিকিৎসা নিতেন কারাগারেও তাদের চিকিৎসা নিতে পারবেন। গত পরশু স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো চিঠিতে খালেদা জিয়াকে ব্যক্তিগত চিকিৎসকের দ্বারা স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাতে প্রধান কারারক্ষকের সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে। অথচ এর কোন প্রতিফলন আজকে দেখা যায়নি। বেগম জিয়া ১৫-২০ বছর ধরে যে ব্যক্তিগত চিকিৎসকের চিকিৎসা নিচ্ছেন তাদের চিকিৎসা প্রদানের কোন সুযোগ দেয়া হচ্ছে না। একজন মানুষ হিসেবে বেগম জিয়ার যে চিকিৎসা পাওয়ার অধিকার সেটাকেও হরণ করতে ক্ষমতা তপস্বী সরকারপ্রধান বিষ দাঁত লুকাতে পারছেন না। অথচ নিজেকে সাধু দেখানোর জন্য বেগম জিয়ার চিকিৎসার নামে নাটক করেছেন।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, তাড়াহুড়া করে হাসপাতালে আনা হয়েছে। এতোকিছুর পরও সরকারের উদ্দেশ্য যে অশুভ নয় এটা আমরা কিভাবে বুঝব। তিনি বলেন, বেগম জিয়াকে হাসপাতালে নেয়া হয়েছে খবর পেয়ে পরিবারের সদস্যরা হাসপাতালে ছুটে গেলে সেখানে তাদেরকে পর্যন্ত দেখা করতে দেওয়া হয়নি। বেগম জিয়াকে বহনকারী গাড়ি হাসপাতালে পৌঁছলে একরকম টানা হেঁচড়া করে ওপরে উঠানো হয়। গাড়ি থেকে নামার জন্য সিড়ি পর্যন্ত দেয়া হয়নি।

আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর অতিরিক্ত বাড়াবাড়িতে হাসপাতালে ধাক্কা ধাক্কির মতো পরিস্থিতিতে অপমানজনকভাবে তাকে হাসপাতালে ওঠানো-নামানো হয়েছে।

রিজভী আরো বলেন, আওয়ামী রাজত্বে সরকারি হাসপাতালে বিরোধী দলের সেবা পাওয়ার কোন সুযোগ নেই। সেই সুযোগ ও অধিকারহীণতার শিকার হলেন বেগম খালেদা জিয়া। তার চিকিৎসা বিষয়ে সরকার আজ যে বায়েস্কোপ দেখালো তার নিন্দা করার ভাষা খুঁজে পাচ্ছিনা। সরকারের উদ্ভট আচরণের তীব্র প্রতিবাদ ও ধিক্কার জানচ্ছি। এসময় তিনি বলেন, সুচিকিৎসার অভাবে খালেদা জিয়ার কোন ক্ষতি হলে এর দায় সরকারকে নিতে হবে। বেগম জিয়ার অগ্রযাত্রায় বলপূর্বক প্রতিহত করে কোন লাভ হবে না। তাকে কোনভাবেই টলানো যাবে না।

সূত্র: মানবজমিন

Facebook Comments

comments