‘উস্তাদ ব্রেক, সামনে ধানক্ষেত!’

ট্রাকের হেলপারের চিৎকার, ‘উস্তাদ ব্রেক!সামনে ধান ক্ষেত!’ গাড়ি তো সড়ক দিয়েই চলছিলো। এখানে ধানক্ষেত আসবে কোত্থেকে! ড্রাইভার একটু এগোতেই দেখলেন সত্যি সত্যিই সামনে ধানক্ষেত!

এটি নেত্রকোণা দুর্গাপুর পৌর শহরের চিত্র। সামান্য বৃষ্টিতেই পৌর শহরের বিভিন্ন সড়কে কাঁদা জমে যাওয়ার কারণে শহরে চলাফেরা করা দুঃস্কর হয়ে পড়েছে। দোকানদাররা ত্যাক্ত বিরক্ত হয়ে প্রতিবাদস্বরূপ এখন প্রায়ই সড়কে ধানের গাছ রোপন করেন।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, পৌরসভার উৎরাইল বাজার, কাঁচারী রোডসহ সব রাস্তায় কাদা আর কাদা। রাস্তায় পিচ বলতে কিছু আর অবশিষ্ট নেই।

গত বছরের ২৫ অক্টোবর আনুষ্ঠানিকভাবে ৩৬ কি.মি. সড়ক ৩১৬ কোটি টাকা ব্যয়ে সংস্কার কাজের উদ্বোধন করেন নেত্রকোণার-১ আসনের এমপি ছবি বিশ্বাস। ওয়ার্ক অর্ডার জনসমক্ষে টাঙ্গানো কথা থাকলেও এখনো পর্যন্ত স্থাপন করা হয়নি কোন বিলবোর্ড। ইতোমধ্যে ১টি পর্যবেক্ষক দল সরজমিনে সড়কটি পরিদর্শনে গিয়ে দেখতে পান অনেক অনিয়মের দৃশ্য।

তারা বলেন, সংস্কার কাজের জন্য কোথাও কোথাও ১ ফুট, কোথাও ৩ ফুট গর্ত খোড়া হয়েছে। নিম্ম মানের পাথর, পুরাতন ইটের শুরকি ও কাঁদা মাটি মিশ্রিত বালু ব্যাবহার করা হচ্ছে রাস্তার কাজে। প্রায় ৪০ বছর পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে মহাসড়কে উন্নীত করা হয় দুর্গাপুর-শ্যামগঞ্জের এই সড়ক।

এ বিষয়ে দুর্গাপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এমদাদুল হক খান জানান, আমি এমপি মহোদয়ের সাথে কথা বলেছি। রাস্তার কাজের ব্যপারে সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী দিদারুল আলম এর সাথে বেশ কয়েকবার কথা বলেছি। কাজের মান নিয়ে অনেকেই আমাকে বলেছে, পুনরায় সরেজমিনে তদন্ত করে অচিরেই এর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবো।

সূত্র: যমুনা নিউজ

Facebook Comments

comments