মনে হলো আ.লীগের দলীয় স্টলে চলে এসেছি!

মাসুদ পারভেজ

একুশে বইমেলায় ঢুকেই প্রথমেই ঢুঁ মারলাম ইসলামী ফাউন্ডেশনের স্টলে। স্টল ও কিতাবগুলোর করুণ দশা একনজর দেখেই উপলদ্ধি হল, ইসলামী ফাউন্ডেশন স্থায়ীভাবে তার জৌলুস হারিয়েছে। তবুও আমার মত আশাবাদী পাঠকের ঘাটতি নেই, ছোটখাট একটা জটলা লেগে আছে স্টলের সামনে। তবে অল্পতেই হতাশ হয়ে ফিরে যাচ্ছেন সিংহভাগ। নাছোড়বান্দা কিছু পাঠক বইগুলো নেড়েচেড়ে দেখছেন, করুণ দশার জন্য আফসোস করছেন, ইসলামী ফাউন্ডেশন ঘুরে দাঁড়াবে এই আশায় অন্য স্টলমুখী হচ্ছে। চারটে বই কিনলাম। সৌভাগ্য কিংবা দুর্ভাগ্য জানি না, এর মধ্যে তিনটেই স্টলের সর্বশেষ কপি। এরমধ্যে একটি বই ২০০৪ সালে প্রিন্ট করা। দেখে মনেহল বহুকাল গুদামবন্দী ছিল, বইমেলার সুযোগে ফাউন্ডেশন গুদাম খালি করার সুযোগ পেয়েছে।

ছবিতে স্টলের তাকের উজ্জ্বল যে অংশটা দেখতে পাচ্ছেন(নিচের ২য় ছবি), এগুলো এই বছর প্রকাশিত অথবা পূনঃমুদ্রিত বই। নতুন মলাটের কারণে পাঠকের অনুসন্ধানী নজর সর্বপ্রথম এই অংশে এসে পড়ে। প্রথম নজরে মনে হল, ভুলে বোধহয় আওয়ামীলীগের দলীয় স্টলে চলে এসেছি। স্টলের ব্যানারের দিকে তাকিয়ে নিশ্চিত হলাম, নাহ! ইসলামী ফাউন্ডেশনের স্টলেই আছি।

শুনেছি, দুঃখ শেয়ার করলে কমে। তাই, আপনাদের সাথে শেয়ারের নিমিত্তে ছবি তুললাম। উজ্জ্বল অংশের বইগুলোর নাম একনজরে যদি দেখি,
১। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানঃ সিরাজউদ্দীন আহমেদ
২। ভারত বিভাগ, ঐতিহাসিক ভুলঃ সিরাজউদ্দীন আহমেদ
৩। মৃত্যুঞ্জয়ী জাতীয় চার নেতাঃ শাহাদাত হোসাইন
৪। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান : জীবন ও কর্মঃ উবয়দুল মোকতাদির চৌধুরী
৫। গণতন্ত্রের মানসপুত্র হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীঃ সিরাজ উদ্দীন আহমেদ
৬। সর্বভারতীয় নেতা শেরে বাংলা এ কে ফজলুল হকঃ সিরাজ উদ্দীন আহমেদ
৭। জঙ্গিবাদের উৎস মওদুদীপন্থীদের ভ্রান্ত শিক্ষা রাজনীতি ও ব্যাংকিং ব্যবসাঃ শামীম মোহাম্মদ আফজাল

তবে কর্তৃপক্ষ উল্লেখিত বইগুলোর সাথে বেমানান কিছু ইসলামী বই (কুরআন পরিচিতি, তাফসীর চর্চায় তাবীঈ’গণের অবদান, মুজিযাতুন নবী, আল কুরআন ও মনোবিজ্ঞান) দয়াকরে শেলফে ঠাঁই দিয়েছেন।

ইসলামী ফাউন্ডেশনের ওয়েবসাইটে দেওয়া তথ্যমতে, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ইসলামী ফাউন্ডেশন মোট ১২ টি নতুন বই প্রকাশ করেছে। বইগুলোর তালিকা, লেখকের নাম ও ছাপা কপি সংখ্যা তুলে ধরলাম। (সূত্রঃ goo.gl/U1jHoN)

১। শেখ হাসিনার প্রেরণায় বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণে ইসলামিক ফাউন্ডেশনঃ শামীম মোহাম্মদ আফজাল (৫০০০০ কপি)
২। সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে ইসলামঃ সামীম মোহাম্মদ আফজাল (৫২৫০ কপি)
৩। মুক্তিযুদ্ধের গল্পঃ দেলোয়ার হোসেন (৩২৫০ কপি)
৪। গণতন্ত্রের মানসপুত্র হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীঃ সিরাজ উদ্দীন আহমেদ (৩২৫০ কপি)
৫। হজ্জ ও উমরা নির্দেশিকা (মহিলাদের জন্য)- আরফিন আরা নাজ (৩২৫০ কপি)
৬। ইসলামী সহযোগিতা সংস্থা (ওআইসি)- ড. সৈয়দ শাহ্ এমরান (৩২৫০ কপি)
৭। বিজ্ঞান তথ্য ও প্রযুক্তিঃ প্রফেসর ড. আবদুল জলিল (৩২৫০ কপি)
৮। ছোটদের প্রিয় নবীজি (সা)- সালমা আইনী (৩২৫০ কপি)
৯। জ্ঞান চর্চাকারীর আদব-কায়দাঃ জাবীন হামিদ (৩২৫০ কপি)
১০। ছোটদের আ‘লা হযরত ইমাম শাহ আহমদ রেজা খান (র)- মুহাম্মদ মুহিবুল্লাহ সিদ্দিকী (৩২৫০ কপি)
১১। ফিদায়ে মিল্লাত সাইয়িদ আসআদ মাদানী (র)- সালেহ আহমদ (৩২৫০ কপি)
১২। মহানবী (সা)-এর কয়েকটি ভবিষ্যৎ বাণীঃ মাও: মোহাম্মদ হাবিবুল মতিন সরকার (৩২৫০ কপি)

লক্ষনীয় যে, মোট ৮৭৭৫০ কপি নতুন বইয়ের মধ্যে শুধু শেখ হাসিনার প্রেরণায় বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণে ইসলামিক ফাউন্ডেশন বইটি ছাপা হয়েছে ৫০০০০ কপি। অর্থাৎ একবছরে ফাউন্ডেশন যতগুলো নতুন কপি ছাপিয়েছে, তার মধ্যে এই বইটি ছাপিয়েছে শতকরা ৫৭%! ইসলামী ফাউন্ডেশনকে এমন খোলেআম রাজনৈতিকভাবে ব্যবহারের জন্য শামীম মোহাম্মদ আফজাল প্রতিভাকে সম্মান জানাতেই হয়।

আমার বন্ধুবর রসিক মানুষ, ফাউন্ডেশনের বিক্রেতাকে সিরিয়াস স্টাইলে জিজ্ঞেস করলেন, “ইসলামের দৃষ্টিতে ধর্মনিরপেক্ষতা বইটি আছে?” বিক্রেতা পাশেরজনের সাহায্য নিলেন। উনি বেশ ভাবগাম্ভীর্যের সাথে উত্তর দিলেন, “স্টলে নেই। হেড অফিসে পাওয়া যেতে পারে।“

যখন মদিনার সনদে দেশ চলছে, ধীরে ধীরে ধর্মনিরপেক্ষ হচ্ছে, সেখানে ইসলামী ফাউন্ডেশন সেকেলে মৌলবাদী থাকবে কেন?
ধর্মনিরপেক্ষ হতে গিয়ে শেখ মুজিবুর রহমান আওয়ামী মুসলিম লীগ থেকে মুসলিম শব্দটি কেটে দলের নাম আওয়ামীলীগ রেখেছিলেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইসলামী ফাউন্ডেশনের নাম বদলিয়ে আওয়ামী ফাউন্ডেশন করতে পারেন। তাতে আমাদের মত মূর্খ লোকদের বুঝতে বড় সুবিধে হয়।

লেখকের ফেসবুক থেকে

Facebook Comments

comments