‘দ‌লের স‌ঙ্গে বেঈমানি কর‌লে একবার ক্ষমা, বারবার নয়’

আহরাম বিডি ডেস্ক

এক-এগারোর সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের মতো বিএনপিকে ভাঙার, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির ভোটের মতো আগামী নির্বাচন থেকে বিএনপিকে বাদ দেওয়ার ষড়যন্ত্র আগামী দিনগুলোতে অব্যাহত থাকবে উল্লেখ করে দলের নেতাকর্মীদের সবকিছুর ঊর্ধ্বে উঠে ঐক্যবদ্ধ থাকার বার্তা দিয়েছেন দলের চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া।

লা মেরিডিয়েন হোটেলে জাতীয় নির্বাহী কমিটির সভায় এ সব কথা বলেন বিএনপি চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া।

‘দ‌লের স‌ঙ্গে বেঈমানি কর‌লে একবার ক্ষমা, বারবার নয়’ উল্লেখ করে খালেদা জিয়া নেতাকর্মী‌দের উদ্দেশে ব‌লেন, ‘যেখানেই থাকি আপনাদের সঙ্গেই থাকব। অনেক ষড়যন্ত্র হবে। সবাই ঐক্যবদ্ধ থাকবেন। এক পা এদিকে আরেক পা অন্যদিকে দেবেন না। আমি আপনা‌দের স‌ঙ্গে আছি।’

‘লোভ-লালসা, ভয়-ভীতির ঊর্ধ্বে থাকবেন। এক-এগারোর সরকার আমাদের ভাঙতে পারেনি। এরাও পারবে না। এক-এগারোর ফর্মুলা অনুযায়ী সরকার বিএনপিকে মাইনাস করে আবারও একতরফা ভোটারবিহীন নির্বাচন করতে চায়। এটা তাদের করতে দেওয়া হবে না।’

‘আমা‌কে ভয় দে‌খি‌য়ে কোনো লাভ হ‌বে না, আমি দে‌শের মানু‌ষের স‌ঙ্গে আছি। আসুন সবাই মি‌লে এ দেশটা‌কে আমরা রক্ষা ক‌রি’, যোগ করেন খালেদা জিয়া।

বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, নিম্ন আদালত সরকারের পুরো কব্জায়। কতটা কব্জায় তারাই ভালো বলতে পারবেন। তবে এটা সত্য, সঠিক রায় দেয়ার ক্ষমতা এখন তাদের (বিচারকদের) নেই।

সাবেক প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহার উদাহরণ টেনে খালেদা জিয়া বলেন, তারেক রহমানের মামলায় সঠিক রায় দেয়ার কারণে নিম্ন আদালতের এক বিচারককে দেশ ছাড়তে হয়েছে। সরকারের বিরুদ্ধে বলে রেহাই পাননি প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহা। তাকেও দেশ ছাড়তে হয়েছে।

তিনি বলেন, দেশে আজ বিচার কোথায়? কোনো অপরাধ আমি করিনি। তারপরও গায়ের জোরে বিচার করতে চাইছে সরকার। পিপি সাহেবকে দিয়ে এমনভাবে কথা বলতে বাধ্য করা হয়, যাতে তার স্বর শুনলে বোঝা যায়, শক্তিটা আসছে কোথা থেকে!

খালেদা জিয়া বলেন, আগামী ডিসেম্বরে নির্বাচন। কিন্তু এক বছর আগে কেন ভোট চাইছে আওয়ামী লীগ। আসলে নৌকা এতোটাই ডুবেছে যে এক বছর আগে তা টেনে তোলা লাগছে। বিএনপি মাটি ও মানুষের দল। সবেচেয়ে বড় ও জনপ্রিয় দল। আওয়ামী লীগ পুরোনো দল হতে পারে কিন্তু জনপ্রিয় নয়। তাই এক বছর আগে থেকে ভোট চাইতে হচ্ছে।

দেশবাসী ও নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বক্তব্যের পরই বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্যদের সাথে রুদ্ধদ্বার বৈঠক শুরু করেন খালেদা জিয়া।

এর আগে বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সভায় দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানর শুভেচ্ছা বক্তব্যের ভিডিও প্রচার করা হয়েছে ।

শনিবার বেলা ১১টা ৫ মিনিটে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সভাপতিত্বে সভা শুরু হয়। দলের প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানীর সঞ্চালনায় সভার শুরুতে আন্তর্জাতিক ও জাতীয় পর্যায়ের শিল্পী, সাহিত্যিক, রাজনীতিকসহ ১৭৮ জনের নামে শোক প্রস্তাব পাঠ করা হয়।

Facebook Comments

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here