প্রিজন ভেঙে কর্মীকে উদ্ধার ও সাহসী সেলফি

আহরাম বিডি ডেস্ক

সেলফি তোলার কত যে রকম ফের তা পত্রিকার পাতা খুললেই চোখে পড়ে। চুরি করতে গিয়ে ঘুমন্ত গৃহকর্তার সঙ্গে সেলফি, মৃত লাশের সঙ্গে সেলফি কিংবা পাহাড়ের চূড়ায় উঠে সেলফি। এসব সেলফি তুলতে গিয়ে অনেককে পরপারেও চলে যেতে হয়েছে। সম্প্রতি চলন্ত ট্রেনের সামনে দাঁড়িয়ে একটি সেলফি তুলতে গিয়ে এক্সিডেন্টের ভিডিওসহ একটি খবর ভাইরাল হয়। যদিও পরে জানা যায় এটি সত্যি নয়। কিন্তু এমনটা হওয়া খুবই স্বাভাবিক।

যাই হোক, এমনই একটি সেলফি গতকাল থেকে রাত পর্যন্ত ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। সেলিফিটি মূলত মঙ্গলবার পুলিশ ভ্যান থেকে বিএনপি কর্মীদের ছিনিয়ে আনার সময়কার। তাই এত আলোচিত। অনেকে অবশ্য একে সাহসী সেলফি হিসেবেও আখ্যায়িত করেছেন।

এদিন বিকালে জাতীয় প্রেসক্লাবসংলগ্ন কদম ফোয়ারা মোড়ে আচমকা পুলিশভ্যানে হামলা চালিয়ে নিজেদের কয়েকজন কর্মীকে মুক্ত করেছে বিএনপি নেতাকর্মীরা। বিকাল ৩টা ৪০ থেকে ৩টা ৪৫ মিনিট- এই পাঁচ মিনিটে এ হামলা ও কর্মী ছিনিয়ে আনার ঘটনা ঘটে।

মজার ব্যাপার হচ্ছে- আসামি ছিনতাই শেষে হামলাকারীদের সেলফি তোলার হিড়িক দেখে মনে হয়েছে যেন তারা পিকনিক করতে এসেছে। এ ছবি পরে ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে যায়।

তবে বিএনপি নেতাকর্মীরা এই ঘটনা থেকে একটি ইতিবাচক চিন্তাও সামনে আনছেন। তারা বলছেন তাদের নেতাকর্মীরা ধীরে ধীরে সাহসী হচ্ছেন। পুলিশ ব্যাপক জুলুম নির্যাতনের মোকাবেলা করতে হলে তাদেরকে ভয় পেলে চলবে না। পুলিশ দলীয় ক্যাডারের ন্যায় আচরণ করলে তার জবাব তাৎক্ষণিক দিতে হবে। ভবিষ্যতে তাদের নেত্রীর বিরুদ্ধে নেতীবাচক রায় হলে তারা কোনো কিছুর তোয়াক্কা না করে রাজপথে ঝাঁপিয়ে পড়বেন বলেও প্রতিজ্ঞা করেছেন।

আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়ার মামলার রায় হওয়ার কথা রয়েছে। এ নিয়ে কেন্দ্রীয় নেতারা তৃণমূল পর্যন্ত নেতাকর্মীদেরকে আন্দোলনের জন্য প্রস্তুত করছেন। তাদেরকে সাহস যোগাচ্ছেন। গ্রেফতার কিংবা গুলির ভয় দূর করার চেষ্টা করছেন। আর চরম খালেদাভক্ত ছাত্রদল, যুবদলের নেতাকর্মীরাও জীবনবাজি রাখার প্রত্যয় ব্যাক্ত করছেন। কারন তারা মনে করছেন এটা তাদের এবং দলের অস্তিত্বের প্রশ্ন।

Facebook Comments

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here