কোকোকে নিতে এসেছেন ভালো কথা, দরজা ভাঙছেন কেন?

আতিকুর রহমান রুমন

দেশকে স্বয়ম্ভর, সমৃদ্ধ করার নেশায় তখন তারেক রহমান পাগলপারা। সারাদেশ চষে বেড়াচ্ছেন চারণের মতো। কৃষিজীবী, শ্রমজীবী ও সম্প্রদায়গত পেশার মানুষদের দিয়ে চলেছেন পরামর্শ আর সাধ্যমতো সহযোগিতা। এরই এক পর্যায়ে গেলেন তিনি কক্সবাজরে। সমবেত হাজার হাজার মানুষকে নিয়ে তিনি তার কর্মসূচি সফলভাবে সম্পন্ন করলেন। দিনটি ছিল পয়লা বৈশাখ। হঠাৎ এক কৌতূহলী সাংবাদিক জিজ্ঞেস করে বসলেন, ‘ভাইয়া, আপনি স্ত্রী-সন্ত্মানকে ছেড়ে এ ধরনের কর্মসূচির জন্য এই দিনটি কেন বেছে নিলেন?’ সেদিন হেসে হেসে তিনি বলেছিলেন, ‘আমাদের মতো লোকজনের নববর্ষ এভাবেই কাটবে। পুরো দেশটাই আমার কাছে একটি পরিবার বলে মনে হয়।’

২০০৪ সালের ১ জানুয়ারি তিনি ‘চ্যানেল আই’-এ একটি সাক্ষাৎকার দিচ্ছিলেন। অনুষ্ঠানটিতে দৈনিক মানব জমিন-এর প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী সঞ্চালকের ভূমিকা পালন করছিলেন। এক পর্যায়ে মতিউর রহমান চৌধুরী জিজ্ঞেস করলেন- সংসার কেমন চলছে? উত্তরে তারেক রহমান বললেন- ‘সংসার কিছু অভিযোগের পালায় চলছে। রাজনীতিতে জড়িয়ে যাওয়ার জন্য এ দিকেই সময় বেশি দিতে হচ্ছে। স্ত্রী-সন্তানের অভিযোগ- তাদের সময় দিতে পারছি না।’

এসব ঘটনায় কারো মনে হতেই পারে, দেশের জন্য তার যতো ভালোবাসা, স্বজন-প্রিয়জনের প্রতি মমতা বোধ ততখানি নেই, এ রকম ধারণা কেউ করলে তা কিন্তু একেবারেই ভুল। দেশের ও দশের জন্য তিনি যেমন আকুলপ্রাণ, স্বজন-প্রিয়জনের জন্যও তেমনি মমতার সাগর। অপরিসীম মাতৃভক্তি, স্ত্রী-কন্যার জন্য হৃদয় উজার করা প্রেম ও মমতা, স্নেহধন্য ছোট ভাইয়ের জন্য অগাধ ভালোবাসা, দেশের জন্য অন্ত্মরের গভীর টান- সবকিছুই যেন সমানে সমান।

স্নেহের ছোট ভাই মরহুম আরাফাত রহমান কোকোর জন্য তার যে অগাধ ভালোবাসা- জনসমক্ষে তার প্রথম প্রকাশ ঘটেছিল ২০০৭ সালের ১৬ এপ্রিল।

এর আগের রাতেই ঢাকা সেনানিবাসের শহীদ মঈনুল রোডের বাড়ি থেকে গ্রেফতার হন আরাফাত রহমান কোকো। সে এক বেদনা-বিধূর ঘটনা। রাত তখন সোয়া ১১টা। একের পর এক গাড়ি এসে থামছে মঈনুল রোডের বাসাটির সামনে। গাড়ি থেকে ঝাঁকে ঝাঁকে নামছেন যৌথ বাহিনীর সদস্যরা। যৌথ বাহিনীর দুই শতাধিক সদস্য গোটা বাড়ি ঘিরে ফেলে। তখন বাসার ভেতরে ছিলেন দেশের তিন তিনবারের নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া, তার ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকো, তার স্ত্রী শরমিলা রহমান, তাদের দুই কন্যা সন্তান জাফিয়া ও জাহিয়া, তারেক রহমানের স্ত্রী ডা. জুবায়দা রহমান ও তাদের একমাত্র সন্তান জায়মা রহমান। দেশনেত্রী এ সময় বিশ্রাম নিচ্ছিলেন। জায়মা, জাফিয়া ও জাহিয়া ছিল ঘুমিয়ে। ডা. জুবায়দা রহমান, আরাফাত রহমান ও শরমিলা রহমান নিজ নিজ কক্ষে ছিলেন।

ঠিক সেই সময় গাড়ির আওয়াজ ও বুটের শব্দে সবাই হতবিহ্বল হয়ে পড়েন। এরপর শুরু হয় দরজায় ধাক্কাধাক্কি। বাসার দরজা ভেঙে পড়ার উপক্রম হলে প্রচণ্ড আওয়াজ ও বুটের শব্দে বাড়ি জুড়ে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। ঘুমিয়ে ছিলেন যারা, সবাই আঁতকে ওঠেন। ভয়ে জড়োসড়ো হয়ে শিশুরা কেঁদে ওঠে। বিশ্রামরত দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া এই ভীতিকর পরিবেশে ছুটে আসনে বাড়ির প্রধান ফটকের দিকে। তিনি জানতে চান- ‘কে আপনারা?’ জবাবে জানানো হয় তারা যৌথ বাহিনীর সদস্য; কোকোকে গ্রেফতার করতে এসেছেন। এ সময় বেগম খালেদা জিয়া তাদের উদ্দেশে বলেন, ‘কোকোকে নিতে এসেছেন ভালো কথা, দরজা ভাঙছেন কেন? এতটা নির্যাতন চালানো ভালো নয়!’

সাবেক প্রধানমন্ত্রী জানতে চান, তাদের কাছে অ্যারেস্ট ওয়ারেন্ট আছে কিনা? থাকলেও এত রাতে কেন? দিনের আলোয় আমার ছেলেকে ডাকলেও তো সে সময়মতো যথাস্থানে চলে যেত। এরপর হুড়মুড় করে বাসায় ঢুকে পড়ে যৌথ বাহিনী। ভেতরে ঢুকেই তারা দু’ভাগে বিভক্ত হয়ে যায়। একটি গ্রুপের সদস্যরা আরাফাত রহমান কোকোকে বলেন, আমাদের সাথে যেতে হবে। বলার সঙ্গে সঙ্গেই মৃদু হাসি দিয়ে বিনয়ী আরাফাত রহমান বিনা বাক্য ব্যয়ে যাবার প্রস্তুতি নেন। যৌথ বাহিনী তাকে নিয়ে যাওয়ার আগে আরাফাত রহমান মায়ের পা ছুঁয়ে সালাম করেন। এ সময় চোখের পানি ধরে রাখতে পারেননি দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া। আরাফাত রহমানকে গাড়িতে তোলার সময় তার স্ত্রী-সন্তান, বড় ভাই তারেক রহমানের স্ত্রী-সন্তানের অঝোর কান্নায় রাতের বাতাস ভারি হয়ে ওঠে।

যৌথ বাহিনীর আরেকটি গ্রুপ তল্লাশির নামে রাত সাড়ে তিনটা পর্যন্ত সেখানে অবস্থান করে। তারা আরাফাত রহমানের স্ত্রীকেও বিভিন্ন বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে। বাসা থেকে যাবার সময় তারা দুটি কম্পিউটারের হার্ডডিস্ক ও বেশ কিছু কাগজপত্র নিয়ে যায়।

আরাফাত রহমান কোকোর গ্রেফতারের কথা শুনে আবেগআপ্লুত হয়ে কেঁদে ওঠেন কারাবন্দি তারেক রহমান। তিনি তখন ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে ছোট্ট একটি সেলে সুবিধাবঞ্চিত অবস্থায় অন্তরীণ। তার কান্নার শব্দে ছোট্ট সেলটি যেন কেঁপে উঠছিল। দিনভর তিনি কেঁদেছেন। তাকে সাহস জুগিয়েছে, সান্তনা দিয়েছে একই সেলে অপর বন্দি কবির। কারা কর্মকর্তাদের উদ্ধৃতি দিয়ে সংবাদপত্রে রিপোর্ট বেরিয়েছে যে, সারাদিন কাঁদতে কাঁদতে তার চোখমুখ ফুলে গেছে।

কারা কর্তৃপক্ষ আরাফাত রহমান কোকোর গ্রেফতারের কথা তারেক রহমানকে জানাননি, তবে সেলে ছোট্ট একটি টেলিভিশন আছে, সেখানে কেবল বিটিভির অনুষ্ঠানমালা দেখা যায়। সেখানে সকাল এবং দুপুরের সংবাদে আরাফাত রহমান কোকোর গ্রেফতার হবার খবর প্রচার হয়েছিল। তিনি টেলিভিশন দেখার আগেই অন্যান্য বন্দির কাছ থেকে খবরটি জেনেছেন। একমাত্র ছোট ভাই গ্রেফতার হওয়ার খবর তাকে মারাত্মকভাবে আঘাত করেছে।

তারেক রহমান (পিনু) এবং আরাফাত রহমান কোকো পিঠেপিঠি দুই ভাই। তারা পরস্পর বন্ধু ও খেলার সাথীও। তারা এক সঙ্গে স্কুলে গেছেন, এক সঙ্গে খেলাধুলা করেছেন, আব্বা-আম্মার কাছে এক সঙ্গেই অনুযোগ-অভিযোগ দাবি নিয়ে হাজির হয়েছেন, এক সঙ্গে বেড়াতে গেছেন। সাবেক মন্ত্রী মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দীনের জবানিতে পাওয়া যায়, এক সঙ্গে দু’ভাই হজ পালন করতে গেছেন, এক সঙ্গে দু’ভাই স্ত্রী-কন্যা সমেত চট্টগ্রামে বেড়াতে গিয়েছিলেন।

দু’ভাইয়ের মধ্যে চমৎকার বোঝাপড়া, চমৎকার হৃদ্যতা। হবেই না-বা কেন? দু’ভাই যে অভিন্ন সুখ-দুঃখের সাথী। বাবা শহীদ হবার পর শিশুকাল থেকেই দু’জন অনেক বিপদ-আপদ, ঝঞ্ঝাবহুল ইতিহাসের সাক্ষী। কখনো বাবাকে দেখেছেন তারা রণাঙ্গনে, কখনো দেখেছেন অগোছালো সেনাবাহিনীকে সংগঠিত করতে, কখনো সেই সেনাবাহিনীর সদস্যদের হাতে পিতার আটক হওয়া আর মুক্ত হওয়ার ঘটনা এবং একই বাহিনীর কতিপয় বিপথগামী সদস্যের হাতে পিতার মর্মান্তিক শাহাদতবরণের ঘটনারও তারা সাক্ষী।

ছোট ভাইয়ের জন্য তারেক রহমানের যে কী অপরিমেয় স্নেহ-মমতা সেটা আরেকবার বোঝা গিয়েছিল আরাফাত রহমান কোকোর মৃত্যুর পর। ২০১৫ সালের ২৪ জানুয়ারি কুয়ালালামপুরে বাংলাদেশ সময় দুপুর সাড়ে ১২টায় তিনি ইন্তেকাল করেন। সীমাহীন অপপ্রচার, অকথ্য অত্যাচার ও নির্মম-নির্যাতন চালানো হয়। ভয়-ভীতি, হুমকি-ধমকিসহ নানারূপ মানসিক নির্যাতন চালিয়ে তাকে হৃদরোগী বানিয়ে ছেড়েছিল সেনাসমর্থিত সরকার। তার ফলেই চিকিৎসারত অবস্থায় বিদেশে তার করুণ মৃত্যু ঘটে।

মৃত্যু সংবাদ শোনার সঙ্গে সঙ্গেই তারেক রহমান শোকে প্রায় পাথর হয়ে গিয়েছিলেন। অনেকটা সময় তিনি কোনো কথাই বলতে পারেননি। তারপর শুরু হয় তার অন্তর্ভেদী হাহাকার, বুকফাঁটা কান্না। প্রিয় ভাইটির কথা মনে হলেই তার অন্তর এখনো গুমরে কেঁদে ওঠে, দীর্ঘশ্বাস ফেলেন, নীরবে ও গোপনে অশ্রুপাত করেন।

আমার সঙ্গে ভালো সখ্য আছে, এমন এক রাজনৈতিক কর্মী মাঝে মাঝেই লন্ডনে যান এবং তারেক রহমানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে তার কুশলাদি জানতে চান। তার মুখ থেকে শোনা গল্পটি এরকম-

দিন কয়েকের এক অনুষ্ঠানে লন্ডনে গেলাম। অনুষ্ঠানের মাঝখানে কিছুটা অবকাশ পাওয়া গেল। ভাবলাম, নেতার শারীরিক অবস্থা এখন কী রকম, দেখে আসি। দেখা হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই তিনি স্বভাবসুলভ ভঙ্গিতে আমি মুখ খোলার আগেই আমার কুশল জিজ্ঞেস করলেন। দেখলাম, তিনি আগের চেয়ে বেশ খানিকটা সুস্থ হয়ে উঠেছেন। ভীষণ ভালো লাগলো নিজের কাছে আত্মবিশ্বাসে ভরপুর একজন ইতিবাচক প্রিয় তারেক রহমানকে দেখে। ভিনদেশেও পারিবারিক ও রাজনৈতিক কাজে নিজেকে ব্যস্ত রেখেছেন। তাই, সময় বেশি না নিয়ে বিদায় নেবার আগেই মনের কথা বুঝতে পেরে তিনি বললেন, তুমি তো সেন্ট্রাল লন্ডনের দিকেই থাকছো, চলো ঐ দিকেই আমার গন্তব্য। এক পর্যায়ে তার সঙ্গেই বেরিয়ে একটি অনুষ্ঠানের উদ্দেশ্যে যাওয়ার সুযোগ হলো আমার। টেমস নদীর পাশে বাংলাদেশি অধ্যুষিত এলাকায় একটি সড়কের পাশে হঠাৎ করেই তিনি গাড়ি থামালেন। ডানপাশে জানালার কাঁচ খুলে তিনি এক দৃষ্টিতে কী যেন দেখছেন, কাকে যেন খুঁজছেন। তারপর আমার দিকে তাকিয়ে ডান হাতের তর্জনী দিয়ে নির্দেশ করে বললেন, ‘দেখো তো, দেখো তো কোকোর মতো লাগছে না? ঠিক যেন কোকো হেঁটে যাচ্ছে!’

আমার বুঝতে বাকি রইল না, স্নেহের ছোট ভাইকে আজও আগলে রেখেছেন বুকের মধ্যখানে। ভাইয়ের জন্য এখনো থামেনি তার কান্না। রাস্তা-ঘাটে, সভা-সমাবেশে, বিপণিকেন্দ্রে বা লোকালয়ে যেখানেই যান, আজও তার চোখ খুঁজে ফেরে আরাফাত রহমান কোকোকে।

লেখক: সাংবাদিক, কলাম লেখক

সূত্র: যায়যায়দিন

Facebook Comments

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here