এবার হামাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করলো আইএস

উগ্রবাদী গোষ্ঠী আইএস এবার ফিলিস্তিনের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছে। আইএসের মিশর শাখা একটি নতুন হত্যাকাণ্ডের ভিডিও প্রকাশ করে এই ঘোষণা দিয়েছে।

বুধবার প্রকাশিত ভিডিওতে কমলা রঙের পোশাক পরিহিত এক বন্দিকে গুলি করে হত্যা করতে দেখা যায়। আইএস দাবি করেছে, হতভাগ্য ব্যক্তি হামাসের সামরিক শাখাকে সহযোগিতা করেছিল।

ভিডিওতে এক উগ্রবাদী ঘোষণা করে, ‘হামাসের কাছে কখনই আত্মসমর্পন করবে না। তাদের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক, সাইলেন্সড পিস্তল এবং বোমা ব্যবহার করবে। তাদের আদালত ও নিরাপত্তা কেন্দ্রগুলোতে বোমা হামলা চালাবে; কারণ, এগুলো তাদের ক্ষমতা ধরে রাখার মূল চালিকাশক্তি।’

হামাস নিয়ন্ত্রিত গাজা উপত্যকার সীমান্ত সংলগ্ন সিনাই উপত্যকায় নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে হামাস যখন মিশরের নিরাপত্তা বাহিনীকে সহযোগিতা করছে তখন এই ভিডিও প্রকাশিত হলো। গত অক্টোবরে সিনাই থেকে চারজন সিনিয়র আইএস সন্ত্রাসীকে আটক করেছিল হামাস।

উগ্রবাদী গোষ্ঠী আইএস ২০১৪ সাল থেকে ইসরাইলের সীমান্তবর্তী সিরিয়ায় ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞ চালালেও কখনও ইসরাইলে হামলা চালায়নি বা হামলা চালানোর নির্দেশ দেয়নি; বরং সিরিয়ায় সরকারি বাহিনীর সঙ্গে যুদ্ধে আহত আইএস সদস্যদেরকে চিকিৎসা সেবা দিয়েছে ইহুদিবাদী ইসরাইল। অবশ্য তেল আবিবের পৃষ্ঠপোষকতা সত্ত্বেও ২০১৭ সালের শেষ নাগাদ সিরিয়া ও ইরাক থেকে উৎখাত হয়ে গেছে আইএস।

মুসলিম বিশ্বের প্রধান শত্রু ইসরাইলের পৃষ্ঠপোষকতা নিয়েই যে আইএস সিরিয়া ও ইরাকে তাণ্ডব শুরু করেছিল তা আরেকবার প্রমাণিত হলো তাদের হামাস বিরোধী ঘোষণা দেখে। গত ৩০ বছর ধরে হামাস ইহুদিবাদী ইসরাইলের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছে।

আফগানিস্তানে আইএস-তালেবানের সংঘর্ষে বিপজ্জনক পরিস্থিতি

যুক্তরাষ্ট্র হস্তক্ষেপ না করলেও আফগানিস্তানের পরিস্থিতি আরো খারাপ হতো। সোমবার রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন এই মন্তব্য করেছেন। রাশিয়ার সংবাদ সংস্থার খবরে বলা হয়, পার্লামেন্টারি নেতাদের সাথে বৈঠককালে পুতিন বলেছেন, প্রকৃতপক্ষে সন্ত্রাসী হুমকির মুখে আফগানিস্তানের অবস্থা যে খারাপ হয়েছে, এটা সত্য কথা। এই অবস্থার আরো অবনতি হচ্ছে।

টোলো নিউজকে পুতিন বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র যদি সেখানে নাও থাকত, তবুও সম্ভবত অবস্থা আরো নাজুক হতো। তিনি বলেন, রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্ক জটিল হলেও, আমাদের অবশ্যই বিষয়টি বাস্তব দৃষ্টিভঙ্গিতে দেখতে হবে।

তিনি বলেছেন, আফগানিস্তানের পুরো সীমান্তজুড়েই তালেবানের নিয়ন্ত্রণ, বিশেষ করে তাজিকিস্তান ও উজবেকিস্তান সীমান্তে। পুতিন আরো বলেন, ‘তুর্কমেনিস্তানের প্রেসিডেন্টের সাথে কথা হয়েছে। তিনি আফগানিস্তান এবং তার প্রতিবেশী পাকিস্তান ও ভারতের সাথে গ্যাসপাইপ লাইন নির্মাণ পরিকল্পনা পুনর্ব্যক্ত করেছেন। তিনি বলেন, আমাদের তিনি এই প্রকল্পে অংশগ্রহণ করতে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। এ সময় তিনি এরই মধ্যে সফল হওয়া প্রকল্পগুলো সম্পর্কে তথ্য প্রদান করেছেন। তবে আমাদের অবশ্যই এই ধরনের প্রকল্পগুলোর সম্ভাব্যতা পরীক্ষা করে দেখতে হবে।

আফগানিস্তানে আইএসের সাথে তালেবানের সংঘর্ষের সূচনা হয়েছে, যা একটি বিপজ্জনক বিষয়। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট বলেন, এতে পরিস্থিতির আরো অবনতি হয়েছে।

সূত্র: পার্সটুডে ও এক্সপ্রেস ট্রিবিউন

Facebook Comments

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here