মুসলিম দেশগুলো চাইলে ইসরাইলকে চারদিক থেকে ঘিরে ফেলতে পারে

জেরুজালেমের বায়তুল মুকাদ্দাস মসজিদে সন্ত্রাসীদের আগুন দেয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে ১৯৬৯ সালে ওআইসি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। ওআইসি হচ্ছে ৪ মহাদেশব্যাপী ৫৭ সদস্যবিশিষ্ট বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম সংগঠন। এর সদস্য দেশগুলো একত্রিত হয়ে সেনাবাহিনী গড়লে তা হবে বিশ্বের সবচেয়ে বড় সামরিক বাহিনী।

ওআইসির সম্মিলিত বাহিনীর সক্রিয় সৈন্যের সংখ্যা দাঁড়াবে কমপক্ষে ৫২ লাখ ৬১০০ জন। আর সম্মিলিত প্রতিরক্ষা বাজেট দাঁড়াবে প্রায় ১৭৫ বিলিয়ন ডলার। অন্যদিকে ইসরাইলের সক্রিয় সেনার সংখ্যা এক লাখ ৬০ হাজার। তাদের প্রতিরক্ষা বাজেট ১৫ দশমিক ৬ বিলিয়ন ডলার। ফলে ইসরাইল সৈন্যরা কখনোই মুসলিম সৈন্যদের সঙ্গে পেরে উঠবে না বরং মুসলিম দেশগুলো চাইলে ইসরাইলকে চারদিক থেকে ঘিরে ফেলতে পারবে।

তুরস্ক এক্ষেত্রে সম্ভাব্য অপারেশনের কেন্দ্র হিসেবে ভূমিকা রাখতে পারে। ন্যাটো সদস্য দেশগুলোর মধ্যে তুরস্ক দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে তার সেনাবাহিনীর জন্য। এদের প্রায় ৪০০০ ট্যাংক, ১০০০ বিমান, ১৩টি সাবমেরিন রয়েছে, যার মাধ্যমে তুরস্ক একাই ইসরাইলকে দমন করতে সক্ষমতা রাখে।ওআইসি সদস্যদের মধ্যে পাকিস্তান একমাত্র মুসলিম পারমাণবিক অস্ত্রধারী দেশ যাদের ভূমিকাও অনেক বেশি।

সম্প্রতি রিসেপ তায়েপ এরদোগান ইসরাইল ইস্যুতে তাদের ভূমিকা স্পষ্ট করেছেন। তিনি বলেছেন, ‘যারা আজ ভাবছে যে জেরুসালেম তাদের, আগামীকাল তারা পালানোর পথ খুঁজে পাবে না।‘ মালয়েশিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রী হিশামউদ্দিন হুসাইন বলেন, ‘জেরুসালেমকে রক্ষা করার জন্য তাদের সৈন্য প্রস্তুত রয়েছে।‘

সম্প্রতি তুরস্ক ওআইসির সদস্য দেশগুলোর সঙ্গে তাদের বন্ধন সুদৃঢ় করেছে। তুরস্ক তার প্রতিবেশী দেশ ইরাকের সঙ্গে সামরিক অনুশীলনের কাজ শুরু করেছে। এ ছাড়াও কাতার, সোমালিয়া এবং অন্যান্য উপকূলীয় ও আফ্রিকান দেশগুলোর সঙ্গে অনেক চুক্তি সই করেছে।

সূত্র: নয়াদিগন্ত

Facebook Comments

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here