ভোট দিচ্ছে স্কুলছাত্ররা, ভয়ে নিশ্চুপ প্রিজাইডিং অফিসার!

কুমিল্লার নাঙ্গলকোটের রায়কোটে ইউনিয়ন নির্বাচনে স্কুলছাত্ররা ভোট দিচ্ছে। তবে এ ব্যপারে ভয়ে নিশ্চুপ প্রিজাইডিং অফিসার।

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১ টায় রায়কোট ইউনিয়নের মনতলী হাইস্কুল এণ্ড কলেজ কেন্দ্রে গিয়ে এমন চিত্র দেখা যায়। স্কুলছাত্র হয়ে কেন ভোট দিতে এসেছে এমন প্রশ্নে মুখ খুলতে নারাজ প্রিজাইডিং অফিসার।

এ বিষয় কেন্দ্রে দায়িত্বে থাকা প্রিজাইডিং অফিসার আব্দুল কাদের জানান, ‘এত কিছু যাচাই বাছাই করা সম্ভব না। যাচাই-বাছাই করতে গেলে পিডা খাইতে হবে আমার, আমার কিছু করার নাই’।

কেন্দ্রে দায়িত্বরত পুলিশ কর্মকর্তারা জানান, প্রিজাইডিং অফিসার অভিযোগ না করলে আমাদের কিছু করার নেই।
কয়েকটি কেন্দ্রে ভোট দেয়ার জন্য চেয়ারম্যান পদের কোনো ব্যালট পাচ্ছেন না ভোটাররা। বৃহস্পতিবার সকালে ভোটাররা এ অভিযোগ করছেন।

এদিকে ভোট কেন্দ্রে অনিয়ম ও কেন্দ্র থেকে নির্বাচনী এজেন্টদের বের করে দেয়ার অভিযোগ নাঙ্গলকোটের আদ্রা উত্তর ইউপিতে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী মাহবুবা নাসরিনের ভোটবর্জনের ঘোষণা করেছেন।

অন্যদিকে সকাল ৮টা থেকে ভোট অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও অধিকাংশ কেন্দ্রে রাতেই ব্যালটে সিল মারার অভিযোগ উঠেছে। এছাড়া বিভিন্ন কেন্দ্রে সহকারী প্রিজাইডিং কর্মকর্তারা প্রকাশ্যে ভোট দিয়েছেন।

সরেজমিনে দেখা যায়, কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলার আদ্রা দক্ষিণ ইউনিয়নের চাটিতলা, আটিয়াবাড়ি, ভোলাইন, তুগুরিয়া কেন্দ্রে প্রকাশ্যে নৌকা প্রতীকে ভোট দেওয়া হচ্ছে। আওয়ামী লীগের লোকজনকে বিএনপির এজেন্ট সাজিয়ে বসিয়ে রাখা হয়েছে। গণমাধ্যমের গাড়ি দেখে নিজেদের লোকজনকে লাইনে দাঁড় করিয়ে রাখা হচ্ছে। চাটিতলা বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের ৬নং বুথে সহকারী প্রিজাইডিং অফিসারকে ভোট দিতে দেখা যায়। এখানে চেয়ারম্যান প্রার্থীর ব্যালট ভোটারদের দেওয়া হচ্ছে না।

এই ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী বোরহান উদ্দিন ভুঁইয়া, বিএনপি প্রার্থী মাঈন উদ্দিন, স্বতন্ত্র প্রার্থী মাস্টার মো. সাইফুল্লাহ ও ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনের প্রার্থী হাফেজ নাসির উদ্দিন মামুন অভিযোগ করেন, প্রকাশ্যে ভোট দিচ্ছে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর লোকজন। তাদের এজেন্ট বের করে দেওয়া হয়েছে।

অভিযোগ সম্পর্কে জানতে আওয়ামী লীগ প্রার্থী আবদুল ওহাবের ফোনে একাধিকবার চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

চাটিতলা বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার ইকবাল বাহার জানান, জাল ভোট এবং অনিয়মের বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা নির্বাচন অফিসার মো. খোরশেদ আলম বলেন, ‘জাল ভোটের বিষয়ে অভিযোগ পেয়েছি। এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

এদিকে, বৃহস্পতিবার বিএনপি প্রার্থী মাঈন উদ্দিন,স্বতন্ত্র প্রার্থী মাস্টার মো. সাইফুল্লাহ ও ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনের প্রার্থী হাফেজ নাসির উদ্দিন মামুন নির্বাচন বয়কট করেছেন।

অন্যদিকে কুমিল্লার কেন্দ্রে কেন্দ্রে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের ক্যাডারদেরকে অস্ত্র নিয়ে মহড়া ও অবস্থান নেয়ার সংবাদও পাওয়া গেছে।

সূত্র: শীর্ষনিউজ ও বাংলা ট্রিবিউন

Facebook Comments

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here