শোভাযাত্রায় না গেলে তিন দিনের বেতন কাটা হবে সরকারি কর্মচারিদের

সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদেরকে সমাবেশে আসার জন্য চিঠি দিয়ে সরকার তাদের ওপর জুলুম করছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

তিনি বলেন, আমরা শুনেছি যদি সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারীরা সমাবেশে না যায় তা হলে তিন দিনের বেতন কাটা হবে। এটা ঘোষণা করা হয়নি কিন্তু ভেতরে ভেতরে করা হচ্ছে। জোর করে মানুষের হৃদয় জয় করা যায় না। প্রধানমন্ত্রী আপনি এটা আজকে জুলুম করছেন। আপনার বাবা বাকশাল করেছিল তখন সেনা বাহিনী বিডিআর সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারীদের সমাবেশে যোগদান করতে হত। আজকে তার কন্যা শেখ হাসিনার আমলে নতুন বাকশাল দেখছি।

শনিবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন।

রিজভী বলেন, কেবিনেট সেক্রেটারি পলিটিক্যাল নয় সরকারি কর্মকর্তা। তিনি নির্দেশ জারি করেছেন সমাবেশে যোগদানের জন্য। তাহলে কি এটা গণতান্ত্রিক না একদলীয় দুঃশাসনের দেশ?

তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার সমাবেশে একজন জেলা সভাপতি যোগদিতে চেয়েছিলেন। এটা কি তার অপরাধ তাকে গ্রেফতার করা হলো কেন। কিন্তু গতকাল কেবিনেট সেক্রেটারি চিঠি দিয়েছেন সরকারী কর্মকর্তা কর্মচারীদদের আজকের সমাবেশে উপস্থিত হওয়ার জন্য কারন প্রধানমন্ত্রী বক্তব্য রাখবেন। কোনটা অন্যায়?

রিজভী বলেন, জোর করে মানুষের হৃদয় জয় করা যায় না। প্রধানমন্ত্রী আপনি এটা আজকে জুলুম করছেন। আপনার বাবা বাকশাল করেছিল তখন সেনা বাহিনী বিডিআর সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারীদের সমাবেশে যোগদান করতে হত। আজকে তার কন্যা শেখ হাসিনা তার আমলে নতুন বাকশাল দেখছি।

মানববন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন- বিএনপির সেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক মির সরাফত আলী সপু, বিএনপির নির্বাহী কমিটির সাধারন সম্পাদক বিলকিস জাহান শিরিন, বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য আলমগীর হোসেন প্রমুখ।

উল্লেখ্য, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সাতই মার্চের ভাষণ ইউনেসকোর বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্যের স্বীকৃতি পাওয়ায় আজ শনিবার সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দিয়ে ঢাকাসহ সারাদেশে আনন্দ শোভাযাত্রার আয়োজন করেছে আওয়ামী লীগ সরকার।সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শোভাযাত্রায় অংশগ্রহনের জন্য সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদেরকে ও সারাদেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে চিঠি দিয়ে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

কর্মসূচির কারণে দুপুর থেকে রাজধানীর বেশ কিছু রাস্তায় যান চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা হবে। যান চলাচল নিয়ন্ত্রণ বলতে শোভাযাত্রা শুরুর আগেই সেই রাস্তাগুলো বন্ধ করে দেয়া হবে। ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) ট্রাফিক দক্ষিণ বিভাগ নগরবাসীকে শোভাযাত্রার ‘রুট ম্যাপ’ দেখে চলাচলের অনুরোধ জানিয়েছে।

তথ্যসূত্র: শীর্ষনিউজ ও প্রথম আলো

Facebook Comments

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here