মীর কাশেম আলীর বাসায় যৌথ বাহিনীর দফায় দফায় তল্লাশি

২০১৬ সালে ফাঁসি হওয়া জামায়াত নেতা মীর কাশেম আলীর বাসায় বুধবার সন্ধ্যা থেকে রাত পর্যন্ত যৌথ বাহিনী কয়েক দফা অভিযান চালিয়েছে। স্থানীয় একাধিক প্রতক্ষ্যদর্শী বাসিন্ধা জানিয়েছেন আসরের নামাজের পর থেকে মীর কাশেমের ঢাকাস্থ বাস ভবনের আশেপাশে আইন শৃংখলা বাহিনীর বিপুল সংখ্যক সিভিল ও পোশাকধারী সদস্যের উপস্থিতি দেখা যায় । মাগরিবের নামাজের পরপরই বাড়ি রেইড দেয় যৌথ বাহিনী । বাড়িতে প্রবেশ করে ব্যাপক তল্লাশি চালায় যৌথ বাহিনী । বাড়ির নারী সদস্যদের ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করে পুরো বাড়ি তন্নতন্ন করে সার্চ করা হয় ।

বাড়িতে থাকা নারী সদস্যদের জিজ্ঞাসাবাদ করা কয় , বাড়িতে কে বা কারা আসে যায় । মীর কাশেমের স্ত্রীকে জিজ্ঞাসা করা হয় তাঁর ছেলের সাথে যোগাযোগ হয় কি না বা অন্য কাদের সাথে যোগাযোগ হয় ইত্যাদি । উল্লেখ্য ২০১৬ সালে জামায়াতে ইসলামী নেতা মীর কাসেম আলীর ছেলে আহমেদ বিন কাসেমকে গুম করা হয় তার বাসা থেকে। তিনি সরকারের আইনশৃঙ্খলাবাহিনী কর্তৃক গুম হয়েছেন বলে দাবি করে আসছে তার পরিবার ও মানবাধিকার সংস্থাগুলো।

এমন এক সময় হটাৎ করে মীর কাশেম পরিবারের উপর এই তল্লাশি শুরু হল যখন বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে প্রশ্ন করায় এক বৃটিশ সাংবাদিককে হুমকি দিয়ে সমালোচনার ঝড় তুলেছেন যুক্তরাজ‌্যের লেবার পার্টির এমপি এবং বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাগ্নি টিউলিপ সিদ্দিকী। বুধবার দ্য টেলিগ্রাফে প্রকাশিত খবরে এ কথা বলা হয়। লন্ডনের হ্যাম্পস্টেড এলাকায় ইরানে আটক এক বৃটিশ মহিলার পক্ষে প্রচারণা চালানোর সময় টিউলিপের সাক্ষাতকার নিতে যান যুক্তরাজ্যের জনপ্রিয় গণমাধ্যম চ্যানেল ফোর এর সাংবাদিক ডেইজি। ২০১৬ সালে বাংলাদেশে গুম হওয়া বৃটেন থেকে ব্যারিস্টার ডিগ্রি সম্পন্ন করা এক নাগরিকের মুক্তির ব্যাপারে টিউলিপ কোন ভূমিকা রাখতে পারবেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে সাংবাদিকের ওপর ক্ষেপে উঠেন তিনি।

সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন, ব্রিটেনে সাংবাদিকের সাথে অশোভন আচরনের পর সামাজিক মাধ্যম ও গন মাধ্যমে যে সমালোচনার ঝড় বইছে তাতে যেন গুম হওয়া আরমান বিন কাসেমের পরিবার কোন মন্তব্য বা বক্তব্য দিতে না পারে সেজন্য আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর এই অভিযান ।

এই বিষয়ে মীর কাশেমের স্ত্রীর সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাঁর সেল ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায় ।

সূত্র: বিডিটুডে

Facebook Comments

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here