ভারতের মুসলিম সাংসদ ওয়াইসির মহানুভবতা

আহরাম বিডি ডেস্ক

ভারতের হায়দ্রাবাদের প্রভাবশালী মুসলিম সাংসদ তিনি। নাম আসাদউদ্দীন ওয়াইসি। সিংহের মত গর্জন করে কথা বলেন সবসময়। ভারতের মুসলমানদের স্বার্থের আশা ভরসার প্রতীক বলা যায়।

সম্প্রতি এক প্রতিবন্দি মহিলার প্রতি তার মহানুভবতা হৈচৈ ফেলে দিয়েছে। ভেসেছেন প্রশংসার জোয়ারে।

রাজানী নামক এই ছবিতে যেই মহিলাটিকে দেখা যাচ্ছে তিনি  একজন অসহায় প্রতিবন্ধী। এই মহিলা সরকারি ঘর ও বাসে ফ্রীতে যাতায়াতের সুবিধা ও অন্যান্য সরকারি স্কিম পাওয়ার অনুরোধ করছেন আসাদউদ্দীন ওয়াইসির কাছে আর তার কথা গুরুত্ব দিয়ে শুনার জন্য উপুড় হয়ে কান পেতেছেন হায়দ্রাবাদের এই প্রভাবশালী সাংসদ। শোনার পর ভদ্রমহিলাটির সমস্যার সমাধান করবেন বলে কথাও দিয়েছেন।

তার মহানুভবতার এই ছবি ভারতসহ বাংলাদেশের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে।

বাবরি মসজিদ ধ্বংসকারীদের বিরুদ্ধে এই সাংসদ সবসময়ই ছিলেন সোচ্চার। সম্প্রতি তিনি বলেছেন, ভারতের জাতির জনক মহাত্মা গান্ধীর হত্যার ঘটনার চেয়ে বাবরি মসজিদ ধ্বংসের ঘটনা গুরুতর।

তিনি আরো বলেছেন- ‘১৯৯২ সালে ‘জাতীয় লজ্জা’র জন্য যারা দায়ী তারাই আজ দেশ চালাচ্ছেন। মহাত্মা গান্ধীর হত্যার বিচার দু’বছরের মধ্যে শেষ হয়েছিল। কিন্তু তার চেয়েও গুরুতর ঘটনা বাবরি মসজিদ ধ্বংসের বিচার এখনো হল না। গান্ধীর হত্যাকারীদের মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছিল। কিন্তু বাবরি মসজিদ ধ্বংসকারীদের কেন্দ্রীয় মন্ত্রী করা হয়েছে, ‘পদ্মবিভূষণ’ দেয়া হয়েছে। বিচার বিভাগ খুব ধীরে চলছে।’

২০১৫ সালে দেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সম্মান ‘পদ্মবিভূষণ’ পুরস্কার দেয়া হয় এল কে আদবানিকে। সেসময় আসাদউদ্দিন ওয়াইসি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেছিলেন, ‘আদবানিকে কিভাবে দেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সম্মান ‘পদ্মবিভূষণ’ দেয়া হল, যার বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা রয়েছে! তিনি বলেন, ‘আদবানি ‘রথ যাত্রা’ করে দেশের ক্ষতি করেছেন। সম্ভবত এই প্রথম ফৌজদারি মামলায় জড়িত কোনো ব্যক্তিকে ‘পদ্মবিভূষণ’ সম্মান দেয়া হয়েছে।’

আসাদউদ্দিন ওয়াইসি ভারত মজলিস-ই-ইত্তেহাদুল মুসলিমিন দলের প্রেসিডেন্ট। হায়দ্রাবাদ থেকে তিনি তিনবার আইনসভার নিম্নকক্ষ লোকসভার সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। ১৫তম লোকসভায় শ্রেষ্ঠ কৃতিত্বের জন্য ২০১৪ সালে তিনি সংসদ রত্ন পুরষ্কার লাভ করেন।

Facebook Comments

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here